-->

হিলিও জি৩৫ এবং ৫০০০ মিলি এম্প আওয়ার ব্যাটারি সাথে ভারতে আসলো রিয়ালমি সি১১

realme-c11-launched

রিয়ালমি বাজেট রেঞ্জে একের পর এক স্মার্ট ফোন বের করেই চলেছে শাওমি কে টেক্কা দেওয়ার জন্য। পূর্বের রিয়ালমি সি৩ এবং নার্য ১০এ লঞ্চ করেই কোম্পানি শান্ত হয়নি।

যদিও রিয়ালমি সি৩ কেবল ইন্দোনেশিয়াতে বের হওয়া রিয়ালমি সি৩ এর পুনরাবৃত্তি। রিয়ালমি এতগুলো বাজেট ফোন বের করেই সন্তুষ্ট না। এবং এর জন্যই তারা আজ ভারতে অফিসিয়ালি উন্মোচন করল রিয়ালমি সি১১।

দুই সপ্তাহ আগে রিয়ালমি এই নতুন বের করা ফোনটি মালয়শিয়াতে বের করেছে। 

আজকে ফোনটির ফিচারস সম্পর্কে আমরা কথা বলব।

রিয়ালমি সি১১ এর স্পেক্স ও ফিচারস

আপনি জেনে খুশি হবেন যে এই ফোনটিতে রিয়ালমি তাদের পুরনো ডিজাইন ইউজ করেনি। এখানে ব্যাবহার করা হয়েছে শাইনি ব্যাক প্যানেল যেখানে থাকবে গ্রেডিয়েন্ট কালার এবং ভার্টিক্যাল ক্যামেরা সেটআপ।

পিছনের ব্যাক প্যানেল এখন একটা টেক্সচার অনুসরন করে বানানো হয়েছে যেখানে আছে কালো স্ট্রাইপস। স্ট্রাইপস গুলো ফোনটির বর্গাকার রিয়ার ক্যামেরা কাট আউট এর উপর দিয়ে গেছে। এবং পিছনে রিয়ালমির লোগো ও আছে।

অতএব, রিয়ালমি সি১১ এর পিছনে স্কয়ার ক্যামেরা কাট আউট আছে কিন্তু কোনো ফিজিক্যাল ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার নেই।

realme-c11-india-launch

নতুন এই বাজেট রিয়ালমি ফোনটিতে পাবেন ৬.৫২-ইঞ্চির এইচডি প্লাস (১৬০০×৭২০ পিক্সেলস) আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে প্যানেল যার স্ক্রিন-টু-বডি রেশিও ৮৮.৭% এবং স্ক্রিনটি গরিলা গ্লাস ৩+ প্রটেকশন দ্বারা সুরক্ষিত।

ডিসপ্লেটিতে পাবেন একটা ওয়াটার ড্রপ নচ যেখানে ৫ মেগাপিক্সেল এর ফ্রন্ট ক্যামেরা রাখা হয়েছে।

তবে এই স্মার্টফোনটির মূল আকর্ষণ হলো এর সিলিকন – মিডিয়াটেক হিলিও জি৩৫ চিপসেট। এটিই হবে বাংলাদেশে লঞ্চ হওয়া প্রথম হিলিও জি৩৫ ফোন। ২ জিবি মেমোরি পাবেন যেটা এলপিডিডিআর৪এক্স টাইপের।

স্টোরেজের জন্য পাবেন ৩২ জিবি স্পেস ও মাইক্রো এসডি সাপোর্ট থাকায় ফোনটির স্টোরেজ ২৫৬ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে।

realme-c11-camera

রিয়ালমি সি১১ এর রিয়ার ক্যামেরা অনেকটা রিয়ালমি সি৩ এর মতো। আপনি পাবেন ডুয়াল ক্যামেরা অ্যারে – ১৩ মেগাপিক্সেল (এফ/২.২) প্রাইমারি ক্যামেরা এবং ২ মেগা পিক্সেল এর ডেপথ সেন্সর।

যারা পাওয়ার ইউজার তাদের কোথাও মাথায় রেখেছে রিয়ালমি– দিয়েছে ৫০০০ মিলি এম্প আওয়ার এর বড়ো ব্যাটারি। বক্সে পেয়ে যাবেন ১০ ওয়াট এর চার্জার।

কানেক্টিভিটির জন্য ফোনটিতে আছে – ৩.৫ মিলিমিটার এর অডিও জ্যাক, মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট, ব্লুটুথ ৫.০ এবং ২.৪ গিগা হার্টজ এর ওয়াইফাই সাপোর্ট। আর হ্যা ডুয়াল ভল্টই সাপোর্টও পাবেন।

রিয়ালমি সি১১ এর মূল্য এবং এভেইলেবিলিটি

ভারতে রিয়ালমি সি১১ এর প্রাইস রাখা হয়েছে ৭,৪৯৯ রুপি যেটা ২+৩২ জিবি ভেরিয়েন্ট এর জন্য। বাংলাদেশে আসলে ১৫ হাজার এর নিচে হবে আশ করি।

ফোনটি দুইটা কালারে পাওয়া যাবে যথা রিচ গ্রিন এবং রিচ গ্রে। ভারতের স্থানীয় সময় অনুসারে দুপুর বারোটা থেকে ফোনটি ফ্লিপকার্ট এবং রিয়ালমি এর অফিসিয়াল স্টোরে বিক্রি হওয়া শুরু হবে।

আপনার এই ফোনটি কেমন লেগেছে? জানাবেন কমেন্ট সেকশনে। আর আমাদের ফেসবুক গ্রুপ জয়েন অবশ্যই করবেন।

Post a Comment

আমরা স্প্যাম ঘৃণা করি!

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো