-->

৫০ হাজার টাকার গেমিং পিসি বায়িং গাইড [২০২০]

Best+Gaming+PC+Under+50000+Taka

আপনার কি মনে হয় একটা ভালো বাজেট ফ্রেন্ডলী গেমিং পিসি আপনি কত টাকা খরচ করে বানাতে পারবেন ? ১ লাখ টাকা! না, আরও বেশি আসলে একটা ভালো এবং মোটামুটি সবরকম হাই এন্ড গেম খেলা যাবে এমন পিসি বিল্ড তৈরি করতে ৫০ হাজার টাকার মত লাগবে। বিশ্বাস হচ্ছে না ?

নাই হতে পারে কিন্তু আজকের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আমরা আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি ৫০ হাজার টাকার মধ্যে সেরা বাজেট গেমিং পিসি । আপনি নিশ্চিত ভাবে ভাবতে পারেন যে এই বিল্ড এর দ্বারা আপনি AAA Games অন্তত ৬০ এফপিএসে খেলতে পারবেন।

যদিও আপনাকে কিছু গেমসে সেটিংস মিডিয়াম এ দিয়ে খেলতে হবে। তো চলুন এর বকবক না করে আজকের পিসি বিল্ড এর গাইড শুরু করে দেই।

আরও পড়ুন:

৫০ হাজার টাকার বাজেট গেমিং পিসি বায়িং গাইড ২০২০

বিঃদ্রঃ আজকের এই পিসি বিল্ডিং গাইড এ বিবৃত সকল পিসি কম্পোনেন্ট এবং পার্টস আপনি StarTech অথবা Ryans Computer থেকে কিনতে পারেন। উল্লেখিত পার্টস গুলোর মূল্য মার্কেট অনুসারে কম বেশি হতে পারে। এমনকি কম্পোনেন্ট গুলো সবসময় সকল মার্কেট নাও থাকতে পারে। alert-info

প্রসেসর 

AMD-Ryzen-5-2600

প্রসেসর হিসেবে সিলেক্ট করা হয়েছে AMD এর Ryzen 5 2600। এর প্রাইস হচ্ছে ১২ হাজার টাকা। এই প্রসেসরটি এখন পুরনো হয়ে গেলেও এখন এইটা কেনার সবচেয়ে ভালো সময়। 

কারণ AMD Ryzen এর ৩য়‍ জেনারেশন এর প্রসেসর গুলো আসার পর এর মূল্য অনেক কমে গেছে। সেই সাথে এর ভ্যালু-ফর-মানি আরো বেড়ে গেছে।

AMD Ryzen 5 2600 এর বেইজ ক্লক স্পিড ৩.৪০ গিগাহার্টজ এবং ওভারক্লক করে এটি বাড়ানো যাবে ৩.৯ গিগাহার্টজ পর্যন্ত। এর ৬ টি করে এবং ১২ টি থ্রেড রয়েছে এবং L3 Cache মেমোরি ১৬ মেগাবাইট।


মাদারবোর্ড

AsRock+A320M+HDV+Motherboard

প্রসেসর অনুযায়ী মাদারবোর্ড সিলেক্ট করা হয়েছে ASRock A320M-HDV মাদারবোর্ডটি। বাংলাদেশে এর মূল্য ৫,৬০০ টাকা। এই বাজেটে এটি একটি আদর্শ মাদারবোর্ড ASRock এর কাছ থেকে।

মাদারবোর্ডটি তে থাকছে AMD Promontory A320 চিপসেট যেটা সকল AMD AM4 সকেটের এপিইউ এবং রাইজেন সিপিইউ সাপোর্ট করে।

এছাড়া এতে ৩২ জিবি পর্যন্ত ২৯৩৩ মেগাহার্টজ বেইজ স্পিড এর ডুয়াল চ্যানেল ডিডিআর ৪ র‌্যাম ব্যাবহার করা যাবে। সাথে থাকছে PCie 3.0, NVMe স্লট, HDMI পোর্ট, USB 3.1 পোর্ট, 7.1 CH HD Audio ইত্যাদি।


গ্রাফিক্স কার্ড

Asus+Phoenix+Geforce+GTX+1650+OC+Edition

এই বাজেটে অনেক গ্রাফিক্স কার্ড ছিল যেগুলো এই বিল্ড এর মধ্যে ব্যাবহার করা যেত। কিন্তু আমরা পছন্দ করেছি সম্প্রতি লঞ্চ হওয়া ASUS Phoenix GeForce GTX 1650 OC Edition গ্রাফিক্স কার্ডটি। এর দাম ১৬,৮০০ টাকা alert-info

এক কথায় বললে Nvidia এর সেরা গ্রাফিক্স কার্ড এটি এই প্রাইসের মধ্যে। জিপিওটির বেইজ ক্লক স্পিড ১৫১৫ মেগাহার্টজ এবং বুস্ট করে বাড়ানো যাবে ১৭১০ মেগাহার্টজ পর্যন্ত। এতে ডিসপ্লে পোর্ট, HDMI পোর্ট, DVI পোর্ট রয়েছে।

এটাতে ৪ জিবি মেমোরি থাকায়  সব গেমস খেলতে পারবেন ১০৮০ পিক্সেলে এবং হাই থেকে মাক্স সেটিংস অবদি। এইখানে AMD এর কার্ড ব্যাবহার করা যেত কিন্তু সেটা ব্যাবহার করিনি কারণ প্রাইস বেড়ে যাবে।


মেমোরি

Gigabyte+8GB+DDR4+Ram

পিসিতে গেম খেলার জন্য গ্রাফিক্স কার্ড এর পর সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে র মেমোরি। আপনি যত বেশি মেমোরি বাড়াবেন আপনার গেম পারফরম্যান্স আরও বেশি বাড়বে। তবে অন্যান্য কম্পোনেন্ট গুলোও এখানে আপগ্রেড করতে হয়।

যাই হোক আজকের বিল্ড এর জন্য আমরা সিলেক্ট করেছি Gigabyte 8GB DDR4 2666 MHz Heatsink Desktop Ram। এর মূল্য ৩,৬০০ টাকা। এর ফ্রিকোয়েন্সি ২৬৬৬ মেগাহার্টজ।

এই বাজেটে Corsair এর ৮ জিবি র‌্যাম স্টিকও ছিল কিন্তু ওটার ফ্রিকোয়েন্সি ২৪০০ মেগাহার্টজ। যেটা কিনা গিগাবাইটের অপশন থেকে কম এবং ওটার প্রাইসও বেশি। Ryzen সিপিইউ কে আপনি যত বেশি স্পিড এর মেমোরি দিবেন সেটা আরো ভালো পারফর্ম করবে।


স্টোরেজ

Gigabyte+240GB+SSD+Drive

স্টোরেজ এর জন্য দুইটা অপশন থাকে HDD ড্রাইভ কিংবা SSD ড্রাইভ। আমরা যেহেতু গেমিং পিসি বিল্ড নিয়ে কথা বলছি সেহেতু গেম গুলো দ্রুত ওপেন হওয়ার জন্য SSD এর বিকল্প নেই। SSD তে স্টোর করা গেমগুলো HDD এর থেকে ৪ গুন দ্রুত ওপেন হয়। alert-info

আর এমনিতেও ২০২০ সালে এসে SSD ছাড়া পিসি বিল্ড কল্পনাও করা যায় না। তাই আমরা সিলেক্ট করেছি Gigabyte 240GB Solid State Drive। এর মূল্য ৩ হাজার ৫০০ টাকা। 

এর স্পেস ২৪০ জিবি যেটা তুলনামূলক কম কিন্তু স্পিড অনেক বেশি। আপনার এটা পছন্দ না হলে Western Digital Green 240GB SSD টাও নিতে পারেন। এটাও ভালো।


পাওয়ার সাপ্লাই

Corsair+VS450+PSU

আপনার সিস্টেম সুরক্ষিত রাখতে পাওয়ার সাপ্লাই কখনো এড়িয়ে যাবেন না। আমি বলতে চাচ্ছি উপযুক্ত ভল্টের পাওয়ার সাপ্লাই সিলেক্ট না করলে আপনার সিস্টেম ফল্ট করতে পারে।

তাই সিস্টেমের প্রয়োজন অনু্যায়ী পাওয়ার সাপ্লাই ব্যাবহার করবেন। এই বিল্ডটির জন্য আমরা বেছে নিয়েছি Corsair VS450 মডেলটি। এর আউটপুট ৪৫০ ওয়াট যা এই সিস্টেম এর জন্য যথেষ্ট।


কেসিং

Corsair-G561-F-Casing

আমাদের কেসিং হিসেবে থাকছে MaxGreen G561-F মডেলটি। এটি একটি ATX টাইপের কেসিং এবং এটাতে থাকছে RGB ফ্যান। এর মূল্য ৩ হাজার ১০০ টাকা। কেস সিলেক্ট করা আপনার উপর সম্পূর্ণ। যেটা ভালো লাগে সেটা নিতে পারেন।


এক নজরে সকল পিসি পার্টস

  • প্রসেসর: AMD Ryzen 5 2600
  • মাদারবোর্ড: ASRock A320M-HDV
  • গ্রাফিক্স কার্ড: ASUS GeForce GTX 1650 OC Edition
  • র‌্যাম: Gigabyte 8GB DDR4
  • স্টোরেজ: Gigabyte 240GB Solid State Drive
  • পাওয়ার সাপ্লাই: Corsair VS450
  • কেসিং: MaxGreen G561-F

গেমিং বেঞ্চমার্ক

পূর্বেই বলেছি এই পিসি দিয়ে যেকোনো গেম আপনি ১০৮০ পি রেসুলিউশন এ খেলতে পারবেন হাই থেকে ম্যাক্স সেটিংস এ।

তারপরও নিম্নে এই পিসি টির গেমিং বেঞ্চমার্ক দেওয়া হলো:

  • Fortnite: ১২৮ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • CSGO: ১২৮ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • PUBG: ৮৭.৩ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • GTA V: ৬০.৯ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • Minecraft: ১৬৭ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • The Witcher 3: ৫৪.৯ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • Overwatch: ১০৩ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • World of Warcraft: ৭৬.৯ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • World of Tanks: ৭৪.৮ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)
  • Battlefield 1: ৬৮.৪ FPS (১০৮০পি হাই সেটিংস)

তাই বেঞ্চমার্ক দেখে বুঝতেই পারছেন যে এই বিল্ডটি সব হাই এন্ড গেমস হাই সেটিংস এ ১০৮০পি রেজোলিউশন এ অনায়াসে চালাতে পারে। 

রেকমেন্ডেড আপগ্রেড

এই ৫০ হাজার টাকা বাজেটের গেমিং পিসি বিল্ড আপনার সকল গেম ভালো সেটিংস এ হ্যান্ডেল করতে পারে।যদি আপনার ইচ্ছা হয় তবে ভবিষ্যতে কিছু পার্টস এর আপগ্রেড করতে পারেন–

মেমোরি বাড়ান

৮ জিবি মেমোরি পিসিতে গেম খেলার জন্য যথেষ্ট হলেও এটা অস্বীকার করা যাবে না বেশি মেমোরি লাগালে আপনার সিস্টেম ফিউচার প্রুফ হবে।

তাই ভবিষ্যতে সম্ভব হলে মেমোরি ১২ জিবি কিংবা সবচেয়ে ভালো হয় যদি ১৬ জিবি পর্যন্ত বাড়াতে পারেন। এতে আপনার গেম এর FPS বেড়ে যাবে। তার পাশাপশি ক্রমে আরও বেশি তবে খুলা রাখতে পারবেন।

এছাড়া যেহেতু এটা একটা Ryzen বিল্ড তাই বেশি মেমোরি এই প্রসেসর কে আরো বেশি শক্তিশালী ও পাওয়ার হাংরী কাজ করতে সাহায্য করবে।

স্টোরেজ স্পেস বাড়ান

আপনি যেহেতু জানেন যে এই পিসি বিল্ড এ আমরা ২৪০ জিবি এর একটা SSD ব্যাবহার করেছি। আপনি সম্ভব হলে আরেকটা SSD কিংবা HDD কিনে নিন।

Toshiba 1TB Hard Disk দেখতে পারেন। এছাড়া Samsung Evo 500GB কিংবা এর চেয়ে ভালো কোনো SSD লাগিয়ে নিয়ে পারেন। এতে আপনার অ্যাপ ওপেনিং স্পিড আরও বেশি বেড়ে যাবে।

গ্রাফিক্স কার্ড আপগ্রেড করুন

গেমিং এর জন্য সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ হলো আপনার গ্রাফিক্স কার্ড। তাই আপনি ইচ্ছে হলে আরো ভালো মানের একটা গ্রাফিক্স কার্ড কিনতে পারেন। 

আমি বলি AMD RX 570, RX 580, Nvidia GTX 1060, GTX 1660, GTX 1070 ইত্যাদি গ্রাফিক্স কার্ড আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী ক্রয় করতে পারেন।

মতামত

তো এই ছিল ২০২০ সালের ৫০ হাজার টাকা বাজেটে সেরা গেমিং পিসি। আপনার কি এই বিল্ড পছন্দ হলো ? 

না হলে আপনি কি অ্যাড করতেন কমেন্টে জানাতে ভুলবেন না।

Post a Comment

আমরা স্প্যাম ঘৃণা করি!

অপেক্ষাকৃত নতুন পুরনো